বিটকয়েন কি। বিটকয়েন কিভাবে কাজ করে

বিটকয়েন কি, এটি কিভাবে কাজ করে, কোথায় এটি রাখা হয়, এগুলি সম্পর্কে আপনার মনে অনেক প্রশ্ন আছে। ইন্টারনেটের কারণে প্রত্যেকের জীবন আজ আরও সহজ হয়েছে। শপিং, টিকিট বুকিং ইত্যাদির সমস্ত ধরণের তথ্য থেকে শুরু করে আমরা ইন্টারনেটের সাহায্যে সবকিছু করতে সক্ষম হয়েছি। আজকাল ইন্টারনেটের সাহায্যে অর্থ উপার্জনও সম্ভব। আমরা বাড়ি থেকে সরাসরি ইন্টারনেট থেকে অর্থ উপার্জন করতে পারে এমন অনেকগুলি উপায় রয়েছে। যে পদ্ধতিতে ব্যবহার করে আমরা ইন্টারনেট থেকে প্রচুর অর্থোপার্জন করতে পারি তার একটি হ'ল বিটকয়েন। আপনারা হয়তো এর আগে বিটকয়েন সম্পর্কে শুনে থাকতে পারেন এবং যারা বিটকয়েন সম্পর্কে কিছুই জানেন না তারা আজ এই পোস্টের মাধ্যমে জানতে পারবেন বিটকয়েন কি আর কিভাবে কাজ করে এই বিটকয়েন।

বিটকয়েন কি ? (What is Bitcoin in Bangla)

বিটকয়েন কি ?
বিটকয়েন কি ?

বিটকয়েন হ'ল একটি ভার্চুয়াল মুদ্রা। যেমন অন্যান্য মুদ্রাগুলি হ'ল রুপি,টাকা,ডলার ইত্যাদি ঠিক তেমনই বিটকয়েনও একটি ডিজিটাল মুদ্রা। এটি অন্যান্য মুদ্রাগুলির চেয়ে সম্পূর্ণ আলাদা কারণ আমরা বিটকয়েনকে দেখতে পাই না বা টাকার মতো এটিকে ছুঁতে পারি না। আমরা বিটকয়েন কেবলমাত্র অনলাইন ওয়ালেটে সংরক্ষণ করতে পারি। ২০০৮ আর ২০০৯ সালে বিটকয়েনটি সাতোশি নাকমোটো আবিষ্কার করেছিলেন এবং তখন থেকে এর জনপ্রিয়তা বাড়ছে। বিটকয়েন একটি বিকেন্দ্রীভূত মুদ্রা, যার অর্থ এটি নিয়ন্ত্রণ করার মতো কোনও ব্যাংক বা কর্তৃপক্ষ বা সরকার নেই, অর্থাত্ এটি কোনওটিরই মালিক নয় যে কেউ বিটকয়েন ব্যবহার করতে পারে যেমন আমরা সকলেই ইন্টারনেট ব্যবহার করি এবং এর কোনও মালিক নেই, একইভাবে বিটকয়েনও কোনও মালিক নেই।

বিটকয়েন এর দাম শেয়ার বাজারের মতো কেনা আর বিক্রয় করার মধ্যে নিধারিত হয়। যেমন এক সাথে সবাই যখন বিটকয়েন কিনবে ওই সময় বিটকয়েন এর দাম একই বেড়ে যাবে। আবার যখন এক সাথে সবাই বিটকয়েন বিক্রয় করবে তখন বিটকয়েন এর দাম কমে যাবে। 

বিটকয়েন কেন ব্যবহার করা হয় (Why use bitcoin in bangla)

আমরা অনলাইন পেমেন্ট করতে বা যেকোন ধরণের লেনদেন করতে বিটকয়েন ব্যবহার করতে পারি। বিটকয়েন পিয়ার টু পিয়ার নেটওয়ার্ক ভিত্তিক কাজ করে যার অর্থ লোকেরা সহজেই কোনও ব্যাংক, ক্রেডিট কার্ড বা কোনও সংস্থা ছাড়াই একে অপরের সাথে সরাসরি লেনদেন করতে পারে।

বিটকয়েন লেনদেনের ক্ষেত্রে সবচেয়ে দ্রুত এবং দক্ষ হিসাবে বিবেচিত হয়। আজকাল, অনেক লোক বিটকয়েন যেমন অনলাইন বিকাশকারী, উদ্যোক্তা, অলাভজনক সংস্থা ইত্যাদি গ্রহণ করছেন এবং এর কারণে, বিটকয়েনটি বিশ্বজুড়ে অর্থ প্রদানের জন্য ব্যবহৃত হচ্ছে।

আমরা যেমন বাকী মুদ্রাগুলি ব্যবহার করে অনলাইনে লেনদেন করি, তেমনি ব্যাঙ্কগুলির অর্থপ্রদানের প্রক্রিয়াটি আমাদের অনুসরণ করতে হবে তবেই আমরা অর্থ প্রদান করতে সক্ষম হয়েছি এবং আমাদের ব্যাংক অ্যাকাউন্টে প্রতিটি লেনদেনের অ্যাকাউন্ট উপস্থিত রয়েছে যাতে এটি নিশ্চিত করা যায়।

কোথায় এবং কত টাকা ব্যয় করা হয়েছে, তবে বিটকয়েনের কোনও মালিক নেই, সুতরাং এটির সাথে লেনদেনগুলি একটি পাবলিক লেজারে (অ্যাকাউন্ট) যা রেকর্ড করা হয় যা "ব্লকচেইন (blockchain) " হিসাবে রেকর্ড করা হয়।

সেখানে বিটকয়েন দিয়ে করা সমস্ত লেনদেন বিশদ স্টোরে থেকে যায় এবং একই ব্লকচেইন লেনদেনটি ঘটেছে কি না তার প্রমাণ করা হয়।

বিটকয়েন এর দাম কত (How much does Bitcoin cost)

বিটকয়েন এর দাম সবসময় কম বেশি হতে থাকে। কিন্তু এখন যদি বতমানে আমি বিটকয়েন দামের কথা বলি তো। বতমানে আপনাকে একটি বিটকয়েন কিনতে ভারতে টাকার অনুসারে আপনাকে একটি বিটকয়েনের মূল্য দিতে হবে 21,51,587.33 Indian Rupee.

আপনি যদি বাংলাদেশ থেকে শুধু একটি বিটকয়েন কিনতে চান এখন তাহলে আপনাকে একটি বিটকয়েন এর মূল্য দিতে হবে 25,04,107.51 Bangladeshi Taka.

Live Bitcoin Rate 

বিটকয়েন ওয়ালেট কি (What is Bitcoin Wallet)

বিটকয়েন ওয়ালেট হলো আপনার ব্যাঙ্ক একাউন্টের মতো যেখান থেকে আপনি বিটকয়েন কিনবেন আর বিক্রয় করবেন।

আপনি যদি বিটকয়েন দিয়ে লেনদেন করতে চান সেই জন্য আপনাকে একটি বিটকয়েন ওয়ালেট তৈরি করতে হবে। আপনি বিটকয়েন ওয়ালেট ছাড়া বিটকয়েন কিনতেও পারবেন না আর বিক্রি করতে পারবেন না। 

আপনি আপনার নিজের একটি বিটকয়েন ওয়ালেট খুব সহজেই তৈরি করতে শুধু আপনার কিছু তর্থ দিয়ে যেমন আপনার নাম ঠিকানা ইত্যাদি। 

কিছু পুপুলার এপপ্স যেখান থেকে আপনি বিটকয়েন ওয়ালেট খুলতে পারবেন। 

কীভাবে বিটকয়েন উপার্জন করা যায় (How to earn bitcoin)

আমরা তিনটি উপায়ে বিটকয়েন উপার্জন করতে পারি-

১. বিটকয়েন আপনি যদি টাকা আয় করতে চান তাহলে আপনাকে আগে জানতে হবে অথবা বুঝতে হবে কখন বিটকয়েন দাম কমতে আর কখন বাড়তে পারে।

আপনাকে বিটকয়েন কিনে রাখতে হবে আর যখন ওই বিটকয়েনের দাম বেড়ে যাবে তখন আপনাকে বিটকয়েন বিক্রি করে দিতে হবে এই ভাবে আপনি বিটকয়েন থেকে যায় করতে পারবেন। 

২. দ্বিতীয় উপায়টি হ'ল বিটকয়েন খনন। এর জন্য আমাদের উচ্চ গতির প্রসেসর সহ একটি কম্পিউটারের প্রয়োজন হবে, যার হার্ডওয়্যারটিও ভাল হওয়া উচিত। আমরা শুধুমাত্র অনলাইন পেমেন্ট করতে বিটকয়েন ব্যবহার করি এবং যখন কেউ বিটকয়েন দিয়ে অর্থ প্রদান করে তখন সেই লেনদেন যাচাই হয়। যারা এই বিটকয়েন গুলি যাচাই করে তাদের খনির বলা হয় এবং সেই খনি শ্রমিকদের উচ্চ পারফরম্যান্স কম্পিউটার এবং জিপিইউ থাকে এবং তারা এর মাধ্যমে লেনদেন যাচাই করে। লেনদেনগুলি সত্য কিনা তা তারা যাচাই করে এবং এতে কোনও জালিয়াতি নেই। এই যাচাইয়ের বিনিময়ে, তারা পুরষ্কার হিসাবে কিছু বিটকয়েন পান এবং এইভাবে নতুন বিটকয়েন বাজারে আসে। যে কেউ এটি করতে পারেন, এর জন্য উচ্চ গতির প্রসেসরযুক্ত একটি কম্পিউটার প্রয়োজন।

প্রতিটি দেশে যেমন এক বছরে মুদ্রা মুদ্রণের সীমা থাকে যে আপনি বছরে কেবলমাত্র এতগুলি নোট মুদ্রণ করতে পারবেন, একইভাবে বিটকয়েনের সাথে কিছু সীমাবদ্ধতা রয়েছে যা $10 trillion বেশি বিটকয়েন বাজারে আসতে পারে না। অর্থাৎ বিটকয়েনের সীমা মাত্র $10 trillion এবং আরও বেশি বিটকয়েন কখনও পাবেন না এখন পর্যন্ত, প্রায় $350 billion বিটকয়েন বাজারে এসেছে এবং এখন নতুন বিটকয়েনগুলি খনির মাধ্যমে আসবে।

বিটকয়েন ব্যবহারের সুবিধা কি কি ?

১. এখানে আপনার লেনদেনের ক্রেডিট কার্ড এবং ডেবিট কার্ডের সাথে প্রদানের তুলনায় খুব কম চার্জ।

২. আপনি কোনও ঝামেলা ছাড়াই বিশ্বের যে কোনও জায়গায় এবং যে কোনও সময় বিটকয়েন পাঠাতে পারেন।

৩. এখানে বিটকয়েনের অ্যাকাউন্টটি অবরুদ্ধ করা হয়নি যেমন কখনও কখনও কোনও কারণে ব্যাংক আমাদের ক্রেডিট বা ডেবিট কার্ডটি ব্লক করে দেয়, তবে সেই সমস্যাটি এখানে নেই।

৪. আপনি যদি দীর্ঘ সময়ের জন্য বিটকয়েনে বিনিয়োগ করতে চান তবে আপনি এটি থেকে প্রচুর টাকা আয় করতে পারেন কারণ রেকর্ডে দেখা গেছে যে বিটকয়েনের দাম বাড়তে চলেছে, পরে পরবর্তী সময়ে আপনি এটি থেকে প্রচুর সুবিধা পেতে পারেন। দেখা হল।

৫. বিটকয়েনের লেনদেন প্রক্রিয়ায় যদি এমন কোনও সরকার বা কর্তৃপক্ষ না থাকে যা আপনার দিকে নজর রাখে না, তবে এমন অনেক লোক রয়েছে যারা এটি ভুল কাজ করার জন্য ব্যবহার করে, তাই এটি তাদের পক্ষে উপকারী।

বিটকয়েন ব্যবহারের অসুবিধাগুলি কি কি ?

১. এখানে বিটকয়েন নিয়ন্ত্রণ করার জন্য কোন কর্তৃপক্ষ, ব্যাংক বা সরকার নেই, সুতরাং এর কারণে বিটকয়েনের দামে অনেকগুলি ওঠানামা হয়, তবে এটি কিছুটা ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে ওঠে।

২. যদি আপনার অ্যাকাউন্টটি যে কোনও সময় হ্যাক হয়ে যায়, আপনি আপনার সমস্ত বিটকয়িন হারাবেন এবং এটি আবার ফিরিয়ে আনা যাবে না, কেউ আপনাকে সহায়তা করতে সক্ষম হবে না।

শেষ কথা:-
হ্যাঁ, বন্ধুরা, আপনার আজ আমাদের পোস্টটি কেমন লেগেছে, আজ আমরা আপনাকে বলেছিলাম যে বিটকয়েন কি ? বিটকয়েন কিভাবে কাজ করে। আশা করি আপনি এটি অবশ্যই বুঝতে এবং পছন্দ করেছেন, কারণ আজ আমরা আপনাকে সহজ ভাষায় সঠিক এবং আপডেট তথ্য বলেছি, যা আপনার জন্য দরকারী এবং গুরুত্বপূর্ণ।

কোন মন্তব্য নেই:
Write comment

আপনাকে অনেক ধন্যবাদ।